এই বলিউড অভিনেত্রীরা যারা গুরুতর অপরাধের অভিযোগে জেলে গিয়েছিলেন, #৪নাম্বার সকলের প্রিয়…

0
13798

যখন আমরা বাড়িতে বসে আমাদের কফি কাপে চুমুক দিচ্ছি, তখন সেই মুহূর্তে বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন মামলা, মানহানি, ফৌজদারি দায়ের করা হয়। ভারতীয় হিসাবে আমাদের বিশ্বাস জাতীয় আইন সম্পূর্ণরুপে পুনরুদ্ধার করা হচ্ছে না । কিন্তু একই সময়ে, কয়েকটি উদাহরণ প্রমাণ করেছে যে ‘কানুন কে হাত লম্বে হতে হে’ এবং ‘আইন’ আপনাকে আমাকে এমনকি আমাদের পছন্দের বলিউড সেলিব্রিটিদেরও কখনোই ছাড়ে না।

এমনকি দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বলিউডের নাম করা লোকজনও কঠিন সময় কাটিয়েছেন। একজন আইনের ছাত্র হিসাবে আমি সাম্প্রতিক অনেক ক্ষেত্রে অনেক সম্পর্কে উপলব্ধি করেছি যে এমন আইনি জটিলতার সম্মুখীন হয়েছে এমন অনেক অভিনেত্রী আছে। তাই, এখানে আমি আপনাদের জন্য কিছু বিখ্যাত নামি অভিনেত্রীদের নিয়ে এসেছি যারা ফৌজদারী অভিযোগের তিক্ততা দেখেছে।

মনিকা বেদী

সিনেমায় অভিনেত্রী হিসেবে এবং প্রসিদ্ধ অনুষ্ঠান বিগ বসে যোগদান স্বরুপ মনিকা কে সবাই চেনে । মনিকাও খুব খারাপ সময় দেখেছে।

আবু সালেমের সাথে তার যোগসূত্র ছিল

জাল নথিপত্র নিয়ে পর্তুগালে প্রবেশের জন্য লিসবন পুলিশ মনিকা এবং একজন আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন আবু সালামকে আটক করে । ভারতে হস্তান্তরের পর, মনিকা একই কারণে দন্ডিত হয়েছিল এবং তিনি তার কারাগারের মেয়াদ পূরণ করেছিলেন।

সোনালী বিন্দ্রে

আমার এই নামটা বলার সঙ্গে সঙ্গে আপনারা সাধারণ এবং একজন মিষ্টি মেয়ের মুখ ভাবলেন, ‘হাম সাথ সাথ হে’ সিনেমায় তার চরিত্রের মতন। তাই না ?
যা করেছিল তা শুনে আপনি অবাক হয়ে যেতে পারেন।

ধর্ম নিয়ে তার খারাপ সময় ছিল

বিখ্যাত এই অভিনেত্রী ধর্মীয় বিষয়ের শিকার ছিলেন। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে কারণ কিছু ধর্মীয় লোক তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে কারণ একটি পত্রিকার কভার ছবিতে তার পোস করা ছবি তাদের পছন্দ হয়নি । যদিও পরবর্তীতে তাকে বেল দেওয়া হয় এবং বিষয়টি দ্রুত বন্ধ করা হয়।

মধুবালা

এমনকি বলিউডের সবচেয়ে সুন্দর অভিনেত্রীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল এবং তার জীবনে অসুখের মুখোমুখি হতে হয়েছিল। তাকে ১৯৫৭ সালে গ্রেফতার করা হয়েছিল যখন তিনি একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে মানা করেছিলেন ।

সত্যিই এটি ভাগ্যের বিদ্বেষ …

বালদেব রাজ চোপড়ার মতে, একজন ভারতীয় পরিচালকের সিনেমাতে মধুবালা অভিনয় করতে অস্বীকার করেছিলেন, কিন্তু তিনি সিনেমাটি স্বাক্ষর করেছিলেন এবং অগ্রিম টাকাও গ্রহন করেছিলেন । পরে কাজের নীতি এবং প্রোটোকল অনুসরণ না করার জন্য তাকে গ্রেফতার করা হয়।

স্বেতা বাসু প্রসাদ

শ্বেতাকে একটি উচ্চবিত্ত পতিতাবৃত্তি রেকেটর সাথে জড়িত থাকার জন্য বেঙ্গালুরুতে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এটি জানা যায় যে আদালত তার সম্পূর্ণ স্বাধীনতা প্রদানের আগে তাকে রিমান্ড হোমে রাখা হয়েছিল।

মমতা কুলকার্নি

যখন মমতা এই ইন্ডাস্ট্রি থেকে অদৃশ্য হয়ে যায়, তখন জানা যায় যে তাকে ও তার স্বামী ভিকি গোস্বামীকে মাদকদ্রব্যের ব্যবসা করার জন্য কেনিয়ায় গ্রেফতার করা হয়েছিল ।

এখন তাকে চিনতে কষ্ট হয়।

যখন তার ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পরে তখন তাকে চেনা পর্যন্ত যাচ্ছিল না।
যাই কারনে হোক না কেন এই অভিনেত্রীদের গ্রেপ্তারের পিছনে, তারা কিন্তু তাদের অভিনয় আমাদের হাসিয়েছেন, কাঁদিয়েছেন অনেক সময়ই ।

এখানেই শেষ বন্ধুরা ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here