অবশেষে প্রকাশ পেলো বারমুডা ট্রায়াঙ্গেলের রহস্য, এই কারণে সেখানে লোকজন নিখোঁজ হয়ে যাচ্ছে…

0
23797

আটলান্টিক মহাসাগরের তিন প্রান্ত দিয়ে সীমাবদ্ধ ত্রিভূজাকৃতির একটি বিশেষ এলাকা যেখানে বহু জাহাজ ও বিমান রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হওয়ার কথা বলা হয়। এরই নাম বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল। তবে এর কুখ্যাতির জন্য একে ‘শয়তানের ত্রিভূজ’-ও বলা হয়। বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল যে তিনটি প্রান্ত দ্বারা সীমাবদ্ধ তার এক প্রান্তে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা আর এক প্রান্তে পুয়ের্তো রিকো এবং অপর প্রান্তে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বারমুডা দ্বীপ অবস্থিত। [ সূর্যের চেয়ে আয়তনে ৬৬ কোটি গুণ বড় ‘ব্ল্যাক হোল’! ]

বিগত কিছু বছরে প্রায় ১০০০ মনুষের প্রাণ নিয়ে প্রবল বিতর্কের মুখে পড়েছে বারমুডা ট্রায়াঙ্গল । যদিও এখন মনে হচ্ছে অবশেষে এই রহস্য সমাধানের উপায় খুঁজে পাওয়া গেছে ।

বিজ্ঞানীরা বারমুডা ট্রায়াঙ্গলের আবহাওয়া ও মেঘের বিষয় সম্বন্ধে অনুধাবন করেছেন এবং তার ফলাফলে বিস্মিত হয়ে গেছেন ।

তারা ওই মারণঘাতি মেঘ সম্বন্ধে বিশদ পর্যলোচনা করেন ।

আবহাওয়ার প্রকৃতি ও তথাকথিত মারণঘাতি মেঘের কারণেই সম্ভবত জাহাজ ও বিমানগুলিকে ডুবিয়ে দিতে বাধ্য করতো এই অঞ্চলে ।

এইখানে ঘাতক বাতাসের গতিবেগ ১৭০ মাইল/ঘন্টা ।

একটি ষড়্ভুজাকার মেঘ এলাকায় আতঙ্কজনক বাতাসের সৃষ্টি করে। বায়ুতে এই নিষ্ঠুর বিস্ফোরণগুলি বিশাল প্লেন এবং জাহাজগুলিও ফ্লিপিং করতে সক্ষম।

মেঘের ব্যাসার্ধ আনুমানিক ২০ থেকে ৫৫ মাইল।

মেঘগুলি বারমুডা ট্রায়াঙ্গলের পশ্চিমাঞ্চল থেকে আবির্ভূত হয় এবং তারা প্রচণ্ড ভয়ঙ্কর হতে পারে।

একটি রাডার স্যাটেলাইট দ্বারা প্রাপ্ত এই চিত্রটি আপনাদের দেখতে সহায়তা করবে ওখানকার মেঘের গতিবিধি ।

এটা বলা হয় যে অধিকাংশ মেঘের কোন সাধারণ প্রান্ত নেই এবং তারা প্রায়ই বন্টন মধ্যে বৈচিত্রময় হতে পারে। এর অর্থ এই যে, নির্দিষ্ট সময়ে তাদের প্রসারিত নিশ্চিত করা যায় না।

এই বাতাসগুলিকে ‘বায়ু বোমা’ বলা হয়।

এই অঞ্চলে এই ষড়ভূজী মেঘ এমনভাবে জমাট বাঁধছে যে তার ফলে ‘বায়ুবোমা’ তৈরি হয়। যার ফলে বাতাসের গতি বেড়ে ১৭০ মাইল বা ২৭৩ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা হয়ে যায়। যার ক্ষমতা জলে ভাসা বড় জাহাজ অথবা আকাশে ওড়া বিমানকে সমুদ্রের বুকে আছড়ে ফেলার।

বছরের পর বছর ধরে, বহু তত্ত্ব বারমুডা ট্রায়াঙ্গেলের জন্য উল্লেখ করা হয়েছে।

এই ধরনের বায়ুর গোলা সমুদ্রের উপরে আছড়ে পড়ে বিস্ফোরণ করে, ফলে তুমুল ঢেউয়ের সৃষ্টি হয় যা এই অঞ্চলকে অশান্ত করে তোলে, এমনটাই জানানো হয়েছে রিপোর্টে। তবে এই ধরনের রিপোর্ট কিছু নতুন নয়। এর আগেও বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল নিয়ে অনেক রিপোর্ট বেরিয়েছে। এই ঘটনাই আসল কারণ কিনা সেটা আরও ভবিষ্যতে যাচাইয়ের পরই বোঝা যাবে।

একটি চৌম্বক তত্ত্বও ছিল।

এখানে বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল জড়িত কিছু আরো তত্ত্ব। নীচের আকর্ষণীয় ভিডিও দেখুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here